সে এবং সে

মাথার ওপর একটা নীলাকাশ ছিল
পায়ের নিচে শিশির মাখা ঘাস ছিল
যেই ছেলেটা কান্না চেপে হাসছিল
তার মনেতে মন খারাপের বাস ছিল।

হাঁটতে গিয়ে হঠাৎ এলো গান মনে
সেই ছেলেটা গাইছিল তা আনমনে
চোখের কোণায় একটু শিশির প্রাণপণে
স্মৃতির সুঁইয়ে ক্লান্ত অভিমান বোনে।

সেই ছেলেটার একটা নিজের ঘর ছিল
সেই মেয়েটা অনেকটা দিন পর ছিল
সেদিন হঠাৎ… দু মনেতেই ঝড় ছিল
(তারপর..) দু দুটো মন এক ঘরে বাস করছিলো।

সেই ছেলেটার মনে তখন সুখ ছিল
বুক পকেটে সেই মেয়েটার মুখ ছিল
যেই মেয়েটার ঘর জুড়ে শাহরুখ ছিল
দেয়াল ছেড়ে ডাস্টবিনে সব ধুঁকছিল।

কিন্তু….

সূর্য জ্বলে আকাশ নামের ছাদটাতে
সেই ছেলেটাই হাঁটছে দেখো মাঠটাতে
আজ মেয়েটার হাত ধরা নেই হাতটাতে
ফাটল বুঝি ধরলো আবেগ বাঁধটাতে।

সেই ছেলেটার গানের খাতায় সুর ছিল
কিন্তু ওসব আজকে বহু দূর ছিল
মাথার ওপর একটা শালিক উড়ছিল।
মনটা ভীষণ প্রখর রোদে পুড়ছিল।

সেই ছেলেটা হাঁটছিলো তো হাঁটছিলো
হয়তো সবার অগোচরে কাঁদছিলো
দিনের বেলা, তবু মনে রাত ছিলো
ক্রমশ চোখের আড়াল হয়ে যাচ্ছিলো।

………………..

সেই ছেলেটা হয়তো মনের কল্পনা
কিংবা এটা নিছক কোন গল্প না
তবুও জেনো কষ্টগুলো অল্প না
কেন? সেটা তোমায় আমি বলবোনা।

হয়তো তুমি জানবে কারণ আজ রাতে
নয়তো যখন হয়না তো ঘুম, কাজ রাতে
হঠাৎ জেগে দেখবে কোন মাঝ রাতে
ঘুমিয়ে ছেলে তোমার বুকের পাজরাতে।

Advertisements

There are no comments on this post.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: