Archive for the ‘টাইমপাস’ Category

টাইমপাস ৩১-৮-১৪
অগাষ্ট 31, 2014

ভর্তি হইয়া বিএসসিতে
বসে থাকি একা টিএসসিতে
চারপাশে কত সুন্দরী মেয়ে
তাহাদের দিকে শুধু থাকি চেয়ে

এমনই একদা মেয়েটিকে দেখে
ইশারায় তাকে একপাশে ডেকে
কহিলাম : ওগো,ললনা
বিলটা না হয় আমিই দিবো
চটপটি খাই চলো না!

তাহা শুনে মেয়ে চটপটই রাজি
(সুদিন তবে রে এলো বুঝি আজই!)

খানাপিনা শেষে আদবের সাথে
মোবাইলখানা নিয়ে মোর হাতে
কহিলাম, মেয়ে এইবার তবে
নম্বরখানা বলোনা?

শুনেও না শোনার  দিলো এক হাসি
বলিলো: ভাইয়া, আজ তবে আসি!

মেয়েটা করিলো ছলনা
এইবারও কিছু হলোনা!

Advertisements

আশরাফুল
মে 21, 2014

দিয়ে গেলো অনেক কিছুই
ছিলো আরো অনেক দেয়ার
ধারাবাহিক নয়, ছিলো তাও
সবার প্রিয় ক্রিকেট প্লেয়ার

দোষটা তবু যায়না মানা
হয়না ক্ষমা এমন ভুলের
প্রার্থনা আর না যেন হয়
জন্ম “এমন” আশরাফুলের।

রচনা: জুন ৪,২০১৩

ছড়মাণু – ৪/৪/২০১৪
এপ্রিল 4, 2014

আমাদের চেনা অনুভূতি যত গাঁথা হতে থাকে শহুরে ইটে
ভালোবাসা আজ বড় হিসেবী, মাপা যায় শুধু স্কয়ার ফিটে

কেউ পড়ে পরে করে আরো বেশি পড়িবার পরিকল্পনা
কেউ কোন কিছু না পড়েই করে পরিবার পরিকল্পনা!

টাইমপাস – ৫
নভেম্বর 19, 2013

বিষণ্ন যত শব্দেরা আজ ভীড় করে কাছে এসে
আজ রাতে আমি বলবো কথা ওদেরকে ভালোবেসে
আমি চাইলেই কোন কবিতায় ওরা খুঁজে নেবে আশা
অথচ আমারও ছিল কত না তার প্রতি ভালোবাসা!
আজ কিছু নেই, কিচ্ছুটি নেই, ‘তুমি’ বলে নেই কিছু
ভালোবাসা যায় শূণ্যে মিলিয়ে, বিস্মৃতি নেয় পিছু।

টাইমপাস নাম্বার – ৪
অক্টোবর 26, 2011

টিকাটুলি টাকা ছাড়া যায়না তো টেকা যে
ট্যাকে টাকা থাকা লাগে একাজে ও সে কাজে
টিকটিক করে টিকটিকি ডাকে ঢাকাতে
টকটকে চোখ তুলে যেওনাকো তাকাতে
টেকো কাকা একা খেলা দেখে বিনা টিকেটে
টুকে টুকে ব্যাটসম্যান রান করে ক্রিকেটে
বাঁকা টীকা টিপ্পনী কাটে দেখো কে কারে
ঠেকে ঠেকে টাকা চেখে টিকে থাকে বেকারে
এতটুকু খুকুটার নাকখানা টিকালো
টুকটুকে ঠোঁটে তার তিল দেখো কী কালো!
টুকিটাকি বাকি রাখে কাকীমা’টা দোকানে
টেকনাফে টেকা দায়, যেওনাকো ওখানে
“ট” “ক” য়ের টক্করে চলে লিখালিখি টা
সেটা পড়ে কাটা গেল পাঠকের টিকি টা!

মুঠোফোনিক ৩
নভেম্বর 2, 2010


মেয়েটিকে দেখে মনে হলো বুঝি আগেও দেখেছি কী না
সম্মুখে এসে শুধোলাম হেসে – তোমার নাম কি মীনা?
বিনিময়ে চেয়ে চেনা চেনা মেয়ে বললো আমাকে – জ্বী না!

ভালোবেসে দিলাম তোমায় দিল খানা
বিনিময়ে পেলাম শুধু
খাওয়ার শেষে বিল খানা!

সন্ধ্যা বেলায় যাচ্ছো ছাদে কিসের আশায়
কদিন ধরে উঠছে কি চাঁদ পাশের বাসায়?!

পাত্রী আমার ঠিক হয়েছে
নামটা রীমা
ভাবছি এবার ফেলবো করে
জীবন বীমা!

মুঠোফোনিক ২
অক্টোবর 3, 2010


কষ্টগুলো শিশির হয়ে যায় শুকিয়ে সবুজ ঘাসে
তোমার জন্য ভালোবাসা তাই
রেখেছি গেঁথে দীর্ঘশ্বাসে

ভালোবেসে যারে ছুঁই
সেই ই বলে – মর তুই!

গল্প বলি, শোন?
এমনতরো নিঝুম রাতে কোন
আমরা দুজন পাশাপাশি বসে
একটি তারা পড়লো হঠাৎ খসে
চোখটি বুজে চাইলে কী যে তুমি
বুঝলো না কেউ
না ওই আকাশ,
না ওই রাতের পালিয়ে যাওয়া ঘুমই

জীবন যেন জলের মতোন
উদাস মনে বইয়া যায়
স্রোতের তোড়ে মানুষ কত
অনেক দূরের হইয়া যায়

তীব্র কোন গোপন ব্যথাও
ভাটির টানে সইয়া যায়
সঙ্গে কত দু:খ ক্ষত
জীবন মাঝি লইয়া যায়

তারপরও কেউ কানের কাছে
গুনগুনাইয়া কইয়া যায়
চইলা যাওয়া বন্ধু তবু
বুকের কোথাও রইয়া যায়

পড়, ছোট থেকে বড়
অগাষ্ট 31, 2010


লিটনের কেয়ারে
আছে ভালো কেয়া রে !


দেখো দেখি কত বড় ন্যাকা সে
দু’ দু’খানা প্রেম করে
তবু বলে- একা সে!

৩.
তোমার ঘায়ে
হৃদয় নেই আর ক্ষত ছাড়া
সেই তুমিই দেখলে বলো
“হতচ্ছাড়া” ! (বিস্তারিত…)

মুঠোফোনিক ১
অগাষ্ট 27, 2010

[শানে নুযুল: মাঝে মাঝে যেসব ছন্দ মোবাইলে দুয়েক লাইন ড্রাফট করে রাখি, অথবা বন্ধু কাউকে মেসেজ করি, সেগুলা সেন্ট আইটেমস এম্পটি করার সাথে সাথে আমার মেমোরি থেকেও বেশিরভাগ সময় ডিলিট হয়ে যায়। ওগুলোকে তাই এক জায়গায় জড়ো করে রাখতে এই সিরিজের ইঞ্জিন স্টার্ট দিলাম। ছুম্মা আমিন। ]


ওহ রিয়েলি?! সো স্যরি ড্যুড! আর খালি নেই স্পেস বুকে
তার চে’ বরং ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট, পাঠিয়ে দিও ফেসবুকে!

বহু বছর বাদে আবার দেখা হলো বর্ষা তে
আমি একা ছিলাম ঠিকই, তোমার ছিলো বর সাথে!

আজকে আকাশ মেঘ বিলাবে
আপনমনে বৃষ্টি হাসে
জানলাপাশে মেঘ বালিকা
কাউকে ভেবে মিষ্টি হাসে

ঘুমাও তুমি, আছি
তোমার কাছাকাছি

হারিয়ে গেল গল্প কত, কতই হলো সৃষ্টি
চুপ করে তার সাক্ষী হয়ে রইলো রাতের বৃষ্টি!

টুকিটাকি ছন্দ, হবে কি পছন্দ ?
মার্চ 17, 2010

১.
ও পাড়ার নিতিশ এ
করে দুর্নীতি সে
পুছেনাকো কারো কথা
কারো ভয়-ভীতি সে
সবে ভাবে এই বুঝি
দিবে টেনে ইতি সে
কিছুদিন থেমে শুরু
করে যথারীতি সে।

২.
দিলাম তোমায় মন দেহ
করছো তবু সন্দেহ ?

৩.
যার উপদেশে ভেসে গেল এই দেশটা
নাম তার হলো সরকারি উপদেষ্টা

৪.
পড়লে মনে তোমায় আজো
স্মৃতির ভীড়ে একলা লাগে
রৌদ্রজ্বলা আকাশ আমার
হঠাৎ ভীষণ মেঘলা লাগে।

৫.
তুমি Guiter কে বলো গুইটার
আমি বলি- ধূর! bitter লাইফ
তুমি বলো – উঁহু, sweeter!
ভালোবাসি আমি হাসনাহেনা
তুমি পিছু ধরো জুঁই টার
আমি করি ফেসবুক ব্যবহার
তুমি করো শুধু টুইটার!
জোটেনা আমার একখানা,আর
গার্লফ্রেন্ড তুমি দুইটার!

টাইমপাস নাম্বার – টু
ফেব্রুয়ারি 27, 2010

আহারে যে হলো একি
যা করিনি চিন্তাই
ব্যাচেলর এ মন খানা
হয়ে গেছে ছিনতাই!

ইতি খুঁজি, উতি খুঁজি
কোনাকুনি, সোজাসুজি
মন ফিরে পাইনা যে
কাঁদি সারা দিন তাই
সাবালক এ মন খানা
ঠিকই হলো ছিনতাই!

অবশেষে ঘরে এসে
বলে এক মেয়ে হেসে
না বলে ও মন নিয়ে
বাড়িয়েছি ঋণ, তাই
বলতে তা’ এসেছি যে
আমি প্রীতি জিনতা-ই!

%d bloggers like this: